চলচ্চিত্রাঙ্গন এখন দুইটি ভাগে বিভক্ত! আসছে নতুন কমিটি

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৭ আপডেটঃ ৫:৩২ অপরাহ্ন

গত কয়েক মাস ধরেই ঢাকাই চলচ্চিত্রে অস্থিরতা বিরাজ করছে। গত ঈদুল ফিতরে চলচ্চিত্রের ১৮টি সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত হয় চলচ্চিত্র পরিবার। চলচ্চিত্র পরিবার যৌথ প্রযোজনার সঠিক নিয়ম নীতির দাবিতে আন্দোলনেও নামে।

এছাড়া বিভিন্ন কারণে শাকিব খানকে বয়কট ও জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আব্দুল আজিজকে অবাঞ্চিত ঘোষণা, পরিচালক গাজী মাহবুব, নৃত্য পরিচালক জাকির ও অভিনয়শিল্পী কমল পাটকেরের সদস্য পদ বাতিলসহ কয়েকজনকে নোটিশ পাঠায় সংশ্লিষ্ট সংগঠন।

এসব কারণে চলচ্চিত্রাঙ্গন এখন দুইটি ভাগে বিভক্ত। গত কয়েকদিন ধরেই নতুন একটি সংগঠন করার পরিকল্পনা করছেন আব্দুল আজিজ, শাকিব খানসহ অন্যান্যরা। সম্প্রতি ‘চলচ্চিত্র ফোরাম’ শিরোনামে নতুন একটি সংগঠনের নাম নিবন্ধন করা হয়েছে। এতে প্রযোজক নাসিরউদ্দিন দিলুকে সভাপতি ও নির্মাতা কাজী হায়াৎকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণা করতে যাচ্ছেন বলে জানান নির্মাতা কাজী হায়াৎ।

জানা যায়, এ সংগঠনের সঙ্গে রয়েছেন প্রযোজক মোহাম্মদ হোসেন, আব্দুল আজিজ, অভিনেতা নাদের চৌধুরী, অভিনেতা ওমর সানি, অমিত হাসান, শাকিব খান, চিত্রনায়িকা মৌসুমী, ববিসহ অনেকে। এছাড়াও চিত্রনায়ক বাপ্পারাজকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাখার কথাও শোনা যাচ্ছে।

এ বিষয়ে পরিচালক কাজী হায়াৎ বলেন, ‘ঝড় আসলে মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে যায়। সব এক জায়গায় থাকে। আমরাও তাই করছি। যারা নিয়মিত সিনেমায় কাজ করছেন তাদের প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি গোষ্ঠী কৃত্রিম জলোচ্ছ্বাসের সৃষ্টি করছে। এখন যারা কাজ করছেন তারা কী করবেন? তারা একটি আশ্রয় কেন্দ্র খুলছেন। আমরা নেতৃত্ব চাই না। আমাদের প্রতি আঘাত এলে এর প্রতিরোধ করতে পারি এজন্যই একটা সংগঠন করতে চাচ্ছি।’

এ সংগঠনটি আপনাদের ও চলচ্চিত্রে কতটা সুফল বয়ে আনবে বলে মনে করছেন? জবাবে তিনি বলেন, ‘সুফল বয়ে আনবে কিনা সেটা বড় বিষয় নয়। বড় কথা হলো এরা একত্রিত হচ্ছে।’

নতুন এই সংগঠনটির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা কবে আসবে? উত্তরে তিনি বলেন, ‘আগামীকাল (১০ সেপ্টেম্বর) আমাদের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করার কথা রয়েছে। তবে আজ মিটিংয়ে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।’

সিনেমা নির্মাণের ক্ষেত্রে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির অনুমতি কতটা প্রয়োজন হবে বলে মনে করেন? জবাবে তিনি বলেন, ‘সিনেমা নির্মাণের ক্ষেত্রে চলিচ্চত্র পরিচালক সমিতির অনুমতি প্রয়োজন ও সমিতির সদস্য হতে হবে এমন নিয়ম নীতি সরকারিভাবে করা হয়নি। তবে প্রযোজক সমিতির অনুমতি প্রয়োজন রয়েছে। বাংলাদেশে তানভীর মোকাম্মেল যখন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তখনো তিনি চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সদস্য হয়নি। পরে তাকে অনুরোধ করে সদস্য করা হয়। এরকম আরো অনেকে রয়েছেন।’

কয়েকদিন আগে চিত্রনায়ক শাকিব খান চলচ্চিত্র পরিবারের আহবায়ক চিত্রনায়ক ফারুকের বাসায় গিয়ে ক্ষমা চেয়েছেন। এ সময় চলচ্চিত্র পরিবারের অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। এরপর শাকিব খানের সঙ্গে কোনো দ্বন্দ্ব নেই বলে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বলেন চলচ্চিত্র পরিবার। কিন্তু এখন পাল্টা সংগঠন করা হলে দ্বন্দ্বের অবসান কতটা হলো সেটাই প্রশ্ন? এক রাজ্যে দুই নেতৃত্ব কতটা সুফল বয়ে আনবে চলচ্চিত্র শিল্পে সেটাই দেখার অপেক্ষা।

আরএম-৫০/০৯-০৯ (বিনোদন ডেস্ক, সূত্র: রাইজিংবিডি)