প্রবাসী কর্মীরা মালদ্বীপে জরুরি অবস্থায় বিপাকে পড়তে পারেন

প্রকাশিতঃ ফেব্রুয়ারী ১১, ২০১৮ আপডেটঃ ৫:৫৫ অপরাহ্ন

দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র মালদ্বীপে জরুরি অবস্থা জারির ফলে বিপাকে পড়তে পারে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের শ্রমিকেরা । ফলে সীমিত আকারে নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়টি বিবেচনা করছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

মালদ্বীপের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে সম্প্রতি শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত অতুল কেশাপের বাসায় অনুষ্ঠিত এক অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় এ শঙ্কা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, শ্রীলঙ্কায় অবস্থান করে মালদ্বীপে সমদূরবর্তী দায়িত্ব পালনরত রাষ্ট্রদূতদের নিয়ে ওই বৈঠক ডাকেন অতুল কেশাপ। বাংলাদেশ ও ভারতের দুই কূটনীতিককেও ওই আলোচনায় ডাকা হয়।

আরও খবর : প্রবাসীদের বসন্ত উৎসব

মালেতে বাংলাদেশ দূতাবাসের তৃতীয় সচিব মোহাম্মদ হারুন-অর-রশীদ সম্প্রতি বলেছেন, মালদ্বীপে চলমান রাজনৈতিক অচলাবস্থা ও জরুরি অবস্থা জারির পর এখানে থাকা বাংলাদেশিদের সতর্ক করা হয়েছে। কাজকর্ম ছাড়া অপ্রয়োজনে বাইরে ঘোরাফেরা না করার জন্য বলা হয়েছে। অবসর সময়ে প্রয়োজন ছাড়া বাইরে না থাকতে এবং রাজধানী মালে বা অন্যত্র কোনো সভা, মিছিল বা সমাবেশে অংশ না নিতে আহ্বান জানানো হয়েছে।

বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী মালদ্বীপে এ মুহূর্তে ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ বাংলাদেশি থাকতে পারে। জনশক্তি বিশ্লেষকগণ মনে করছেন, নিষেধাজ্ঞা জারি হলে দেশটিতে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে স্থবিরতা তৈরি হবে।

ফলে বিভিন্ন দেশের শ্রমিকেরা বড় ধরনের সংকটে পড়তে পারেন। এছাড়া, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, চীন ও ভারত মালদ্বীপ ভ্রমণের ক্ষেত্রে তাদের দেশের নাগরিকদের সতর্ক করে বার্তা দিয়েছে।

এসএইচ-২৭/১১/০২ (প্রবাস ডেস্ক, তথ্যসূত্র : ভয়েস বাংলা)