জোরপূর্বক বি‌য়ে‌তে বাধ্য করা হ‌চ্ছে বাংলা‌দেশি নারীকে!

প্রকাশিতঃ আগস্ট ৮, ২০১৮ আপডেটঃ ৮:২৫ অপরাহ্ন

ব্রি‌টে‌নে ভিসা পাওয়ার আশায় বহু ব্রি‌টিশ বাংলা‌দেশি নারীকে ফোর্স ম্যারেজ বা জোরপূর্বক বি‌য়ে‌তে বাধ্য করা হ‌চ্ছে, এমন অভিযে‌াগ পে‌য়ে‌ছে ব্রি‌টিশ স‌রকার। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তরুণীদের ওপর এমন অযাচিত আচারণে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে ব্রিটেনে বাংলাদেশি কমিউনিটির মধ্যে। এসব ঘটনার পরও বহু বাংলা‌দেশিসহ বি‌ভিন্ন দে‌শের অভিবাসী‌দের ব্রি‌টে‌নে বসবা‌সের অনুম‌তি দেয়া হ‌য়ে‌ছে।

ফোর্স ম্যা‌রেজ নিয়ে কাজ করছে এমন ব্রি‌টিশ সেচ্ছাসেবী প্র‌তিষ্ঠানগুলো এ অভিযোগ তুল‌লেও ব্রি‌টে‌নের হোম অফি‌স এ অভিযে‌াগ অস্বীকার ক‌রে‌ছে। চল‌তি সপ্তা‌হে ব্রি‌টে‌নের একটি সংবাদ মাধ্যমের অনুসন্ধা‌নে এ চিত্র উঠে এসেছে। অনুসন্ধানে দেখা গে‌ছে, এরকম ৮৮ টি ঘটনার ক্ষে‌ত্রে ভিক‌টিম ব্রি‌টিশ তরুণীরা তা‌ঁদের স্বামীর ভিসা ব্লক কর‌তে চে‌য়ে‌ছি‌লেন। কিন্তু তা স‌ত্বেও ৪২ জন ব্রি‌টে‌নের ভিসা পে‌য়ে‌ছেন।

২০১৪ সা‌লে ব্রি‌টে‌নে ফোর্স ম্যা‌রেজ‌কে অবৈধ ঘোষণা ক‌রে সরকার। নতুন অাইনে অভিযু‌ক্তের জন্য সাত বছ‌রের কারাদ‌ণ্ডের বিধান রাখা হয়।যুক্তরা‌জ্যের ফোর্স ম্যা‌রেজ ইউনিটের ( এফ এম ইউ) তথ্য ম‌তে, গত বছর ১২৯ জন ব্রি‌টিশ বাংলা‌দেশি নারী ফোর্স ম্যা‌রে‌জের শিকার হ‌য়ে‌ছি‌লেন।

প্রসংগত, নিজের কন্যাকে তাঁর ইচ্ছের বিরু‌দ্ধে বাংলাদেশে নিয়ে বিয়ে দেওয়ার অপরাধে গত সপ্তা‌হে বাংলাদেশি দম্পতিকে আট বছরের কারাদণ্ড দেয় ব্রি‌টে‌নের এক‌টি আদালত। গত ৩০ জুলাই তাঁদের সাজা ঘোষণা করা হয়। বিচারক তাঁর রায়ে বাবাকে সাড়ে চার বছরের ও মাকে সাড়ে তিন বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন।

১৮ বছর বয়সী মেয়েকে ঈদের ছুটি কাটানো ও পরিবারের সদস্যদের সংগে সাক্ষাতের কথা বলে ছয় সপ্তাহের জন্য বাংলাদেশে নিয়ে যান ওই তার মা-বাবা। এর এক সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে তাঁকে ওই বিয়ের পরিকল্পনা সম্পর্কে জানানো হয়। এতে অস্বীকৃতি জানালে তাঁরা ওই কিশোরীকে সহিংস আচরণের হুমকিও দেন মা বাবা।

এসএইচ-২২/০৮/০৮ (প্রবাস ডেস্ক, তথ্য সূত্র : দ্যা টাইম‌স)