মালয়েশিয়ায় ঘর থেকে বের হলেই ২০ হাজার টাকা জরিমানা

প্রকাশিতঃ মার্চ ২১, ২০২০ আপডেটঃ ৩:৩২ অপরাহ্ন

মালয়েশিয়া সরকারের গেজেটে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসজনিত কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের কারণে যারা ‘মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডারের’ (চলাচল নিয়ন্ত্রণ আদেশ) নির্দেশনা মানবেন না, তাদের এক হাজার রিঙ্গিত বা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২০ হাজার টাকার বেশি জরিমানা কিংবা ছয় মাসের বেশি জেল অথবা উভয় সাজা হতে পারে।

মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী দাতুক ডা. আধাম বাবার উপস্থিতিতে গতকাল বুধবার ‘সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ ২০২০’ শীর্ষক আলোচনায় প্রকাশিত গেজেটে আরো বলা হয়েছে, যদি কোনো সংস্থা, কোনো পরিচালক, কোনো সচিব বা এ পর্যায়ের ক্ষমতার যেকোনো ব্যক্তির দেহ থেকে করোনা ছড়ায়, তাহলে উল্লেখিত জরিমানা করা হবে।

গেজেটে আরো উল্লেখ করা হয়, কেউ যদি এমন অপরাধ না করে থাকে, তাহলে অবশ্যই প্রমাণ করতে হবে যে তিনি সজ্ঞানে ওই অপরাধ করেননি এবং এ ধরনের অপরাধ এড়াতে সব প্রচেষ্টা ও পদক্ষেপ তিনি নিয়েছিলেন এবং ভবিষ্যতে এ বিষয়ে সচেতন থাকবেন।

লকডাউনে স্থবির হয়ে পড়েছে গোটা মালয়েশিয়া। মরণব্যাধি করোনাভাইরাস ঠেকাতে চলাচল ও গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ আদেশের তৃতীয় দিন শুক্রবার মালয়েশিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ১০৩০ জন। এ ঘটনায় মারা গেছেন দুজন এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭৫ জন।

দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণার পর থেকে পুরো দেশটির পথঘাট এখন জনশূন্য। সব জায়গায় সুনসান নীরবতা। চলছে রাস্তা ঘাটে চেকিং। এ অবস্থায় দেশটিতে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিসহ বিদেশিরা অনিশ্চয়তায় দিন কাটাচ্ছেন।

মালয়েশিয়া প্রবাসী নরসিংদীর হোসেইন মোহাম্মদ ফারুক ও নারায়ণগঞ্জের মো. শফিকুল ইসলাম জানান, সরকারের কঠোর অবস্থানের কারণে আমরা ঘর থেকে বের হতে পারছিনা, গ্রেফতার আতঙ্কে রয়েছি।

পাশাপাশি এখন কাজ না থাকায় বেকার জীবনযাপন করছেন তারা। করোনা ঠেকাতে দেশটির সরকার নতুন নতুন আদেশ জারি করে বন্ধ করে দিচ্ছে একের পর এক প্রতিষ্ঠান। প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাহিরে গেলেই জেল জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে।

মালয়েশিয়া পুলিশের আইজিপি তানশ্রী আব্দুল হামিদ বদর সরকারের দেয়া ঘোষণা পালন করতে সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। বৃহস্পতিবার পর্টিকসন এলাকায় সিভিল কর্মীদের দায়িত্ব পালনে বাধা দেয়ায় ২৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

জেলা পুলিশ সুপার এইডির শাম মোহাম্মদ জানান, সিভিল কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালনে বাধা দেয়ায় ওই ব্যক্তিকে আটক করা হয়।

শুক্রবার তিনি এক বিবৃতিতে পুলিশ সুপার বলেছিলেন, ‘রোববার পর্যন্ত তাকে রিমান্ডে রাখা হয়েছে।’ তিনি বলেন, সরকারী কর্মচারী তার পাবলিক কাজ সম্পাদন করতে বাধা দেয়ায় দণ্ডবিধির ১৮ অনুচ্ছেদে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে তদন্ত করা হচ্ছে।

তদন্তে অপরাধীর দুই বছর পর্যন্ত জেল বা ১০,০০০ রিঙ্গিত উভয় জরিমানা হতে পারে। পুলিশ সুপার শাম বলেছেন, পুলিশ এমসিও কার্যকর করার জন্য ৩১ মার্চ পর্যন্ত তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাবে।

মুসলিম উম্মাহর সাপ্তাহিক গণজমায়েত জুমার নামাজ হচ্ছেনা। মালয়েশিয়ার ইসলামিক ফতোয়া বিশেষজ্ঞ কমিটি ও মালয়েশিয়ার ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রী দেশটির রাজা ইয়াং ডি পারতুয়ান আগং এর নিকট সকল ধরনের ফতোয়া ও ধর্মীয় বিশ্লেষণগুলো পেশ করার পর রাজার পক্ষ থেকে ইতিবাচক ও নির্দেশমূলক সিদ্ধান্ত জানানোর পর থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত পুরো মালয়েশিয়া জুড়ে জুমার নামাজসহ অন্যান্য নামাজের জামাত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

এদিকে মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গর রাজ্যে ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত জুমার নামাজসহ সকল মসজিদ বন্ধ ঘোষণা করেছেন রাজ্যের সুলতান শরাফউদ্দিন ইদ্রিস শাহ। এর আগে মালয়েশিয়ার পারলিস রাজ্যে জুমার নামাজ স্থগিত করা হয়েছিল। যা ছিল মালয়েশিয়ায় প্রথম জুমার নামাজ বন্ধের সিদ্ধান্ত।

এসএইচ-০৫/২১/২০ (প্রবাস ডেস্ক)