বগুড়ায় নারীকে খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন, মামলা নেয়নি পুলিশ

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ৩, ২০১৯ আপডেটঃ ৭:৪১ অপরাহ্ন

স্বামীর সন্ধানে গিয়েছিলেন বগুড়ার শিবগঞ্জে শিল্পী বেগম (৪০) নামের এক নারী। তাকে ফুলকপির চারা নষ্টের মিথ্যা অভিযোগে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে। এই ঘটনায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্দেশ সত্ত্বেও মামলা নেয়নি থানা-পুলিশ।

স্বামী পরিত্যক্ত শিল্পী খাতুন বগুড়া সদরের গোকুল ইউনিয়নের পলাশবাড়ী গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের মেয়ে। তিনি ঠেঙ্গামারা এলাকায় নির্মাণাধীন ভবনে শ্রমিকের কাজ করেন।

জানা গেছে, ঠেঙ্গামারা এলাকায় নির্মাণাধীন ভবনে কাজ করার সুবাধে শিবগঞ্জ উপজেলার রায়নগর ইউনিয়নের অনন্তবালা গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে রাজমিস্ত্রি মো. রাফির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক হয় শিল্পীর।

৮-৯ মাস আগে তারা বিয়ে করেন এবং ঠেঙ্গামারা এলাকায় ভাড়া বাড়িতে দম্পতি হিসেবে বসবাস করছিলেন।

শিল্পী খাতুন অভিযোগ করেন, স্বামী রাফি ১৫-২০ দিন ধরে তার খোঁজখবর না নেয়ায় তিনি শুক্রবার সকালে শিবগঞ্জের অনন্তবালা গ্রামে ঘর ভাড়ার টাকা নিতে রাফির বাড়িতে যান। তখন রাফি ও তার বাড়ির লোকজন জমি থেকে কপির গাছ উপড়ে তোলেন এবং তাকে চুরির অপবাদ দেন।

এর পর তাকে জমিতে বাঁশের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করেন। শিল্পীর ভাই মামুন জানান, বোন তাদের সম্মান নষ্ট করলেও এ ব্যাপারে তারা মামলা করবেন।

পরে তাকে থানা-পুলিশে সোপর্দ করে। থানা-পুলিশ ওই নারীকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ভ্রাম্যমাণ আদালতে নিয়ে যায়।

কিন্তু ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ঘটনার বিবরণ জানার পর ওই নারীকেই বাদী করে নারী নির্যাতন দমন আইনে মামলা নিতে পুলিশকে নির্দেশনা দেন। কিন্তু থানা-পুলিশ কোনো মামলা না নিয়ে তাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়।

এদিকে, রোববার সকালে ওই নারীর ছবিসহ ভাইরাল হলে জনগণের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। তারা অভিযুক্ত সবাইকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন।

শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান রবিবার এ বিষয়ে বলেন, ওই নারী পুলিশের কাছে নির্যাতনের বিষয়ে কোন অভিযোগ করেননি। তার পরেও মামলা নেয়ার জন্য তাকে খোঁজা হচ্ছে। তাকে পাওয়া গেলে নারী নির্যাতনের মামলা নেওয়া হবে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানায়, বগুড়া সদর উপজেলার পলাশবাড়ি গ্রামের শিল্পী বেগম গৃহ নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করেন। অনন্তবালা গ্রামের শহিদুলের ছেলে রাফি তাকে প্রায় ৯ মাস আগে বিয়ে করে।

তারা বগুড়া শহরে বাসা ভাড়া নিয়ে বেশ কিছুদিন একসঙ্গেই ছিল। গত মাসে রাফি তার স্ত্রী শিল্পীকে রেখে গ্রামের বাড়ি চলে আসে। এরপর থেকে সে স্ত্রীর কোন খোঁজখবর না নেওয়ায় শুক্রবার সকালে অনন্তবালা গ্রামে রাফির বাড়িতে যান শিল্পী। রাফি ও তার পরিবারের লোকজন এতে ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে ফুলকপি খেতে নিয়ে গিয়ে একটি বাঁশের সাথে দড়ি দিয়ে বেঁধে মারপিট করে। পরে স্থানীয় গ্রাম পুলিশের (চৌকিদার) মাধ্যমে তাকে শিবগঞ্জ থানায় পাঠানো হয়।

শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, ওই নারী থানায় এসে তাকে নির্যাতনের কথা জানাননি। তবে যে গ্রাম পুলিশ তাকে থানায় সোপর্দ করে সে জানিয়েছে খেতের ফসল নষ্ট করায় তাকে গ্রামবাসী আটক করে থানায় পাঠিয়েছে।

এ কারণে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে পাঠানো হয়েছিল। সেখানে তিনি প্রকৃত ঘটনা বলার পর ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে থানায় অভিযোগ দিতে বলেছেন। ওই নারীর কাছ থেকে অভিযোগ গ্রহণের জন্য তার সন্ধান করা হচ্ছে।

শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আলমগীর হোসেন বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা দেয়ার মতো ওই নারী বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ ছিল না। বরং তাকেই মারপিট করা হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। এ কারণে তাকে বাদী করে নারী নির্যাতন দমন আইনে মামলা নেয়ার জন্য থানার ওসিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিএ-১৬/০৩-১১ (উত্তরাঞ্চল ডেস্ক)