সেই ৫ ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার, শিক্ষকদের পদত্যাগপত্র প্রত্যাহার

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ৯, ২০১৮ আপডেটঃ ৪:৫৩ অপরাহ্ন

শিক্ষকদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগে টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতিসহ পাঁচ নেতাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

সোমবার রাতে ঢাকায় বিশ্ববিদ্যালয় রিজেন্ট বোর্ডের (বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ) জরুরি সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এদিকে এই বহিষ্কারের সিদ্ধান্তের পর মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি সভা করে তাঁদের পদত্যাগের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করেছে।

সংগঠনের নেতাদের বহিষ্কারের প্রতিবাদে এবং বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশ সংশোধনের দাবিতে ছাত্রলীগ আজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেছে। সংবাদ সম্মেলন করে তারা বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে।

রোববার সকালে তৃতীয় বর্ষের প্রথম সেমিস্টারের কোয়ান্টাম মেকানিকস-১ পরীক্ষা শুরু হয়। এ সময় দ্বিতীয় বর্ষ দ্বিতীয় সেমিস্টারের অকৃতকার্য হওয়া এক শিক্ষার্থীকে ছাত্রলীগ নেতারা পরীক্ষার হলে নিয়ে আসেন। বিভাগের পক্ষ থেকে অনুমোদন না দেওয়ার পরেও জোর করে পরীক্ষা হলে আসনে বসিয়ে দেন ছাত্রলীগের ওই নেতারা।

বিভাগের শিক্ষকেরা বাধা দিতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সজীব তালুকদারসহ তাঁর সহযোগী কয়েকজন পরীক্ষার হলে দায়িত্বরত শিক্ষকদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন এবং শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করতে চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ওই শিক্ষার্থীকে পাহারা দিয়ে সম্পূর্ণ পরীক্ষা শেষ করান।

রাতেই শিক্ষকেরা সব প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে একযোগে পদত্যাগের ঘোষণা দেন। গতকাল দুপুরে রেজিস্ট্রারের কাছে ৫৬ জন শিক্ষক পদত্যাগপত্র জমা দেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর সিরাজুল ইসলাম বলেন, উপাচার্যের সভাপতিত্বে রিজেন্ট বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় রোববার পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের একজন শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দেওয়ানোকে কেন্দ্র করে শিক্ষকদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করায় পাঁচজনকে সাময়িকভাবে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বহিষ্কৃত ছাত্ররা হলেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সজীব তালুকদার, সহসভাপতি ইমরান মিয়া ও পান্না দাস এবং যুগ্ম সম্পাদক জাবির ইকবাল ও ইয়াসিন আরাফাত। সোমবার তাঁদের সাময়িক বহিষ্কারের চিঠি দেওয়া হয়েছে। কেন স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে না, সাত দিনের মধ্যে তার কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভা দুপুরে অনুষ্ঠিত হয়। সমিতির সাধারণ সম্পাদক পিনাকী দে বলেন, শিক্ষকদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণে জড়িত শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ায় বিভিন্ন দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করা শিক্ষকদের পদত্যাগপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

প্রক্টর জানান, রিজেন্ট বোর্ডের সভায় বোর্ড সদস্য নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য সাইদুল হক চৌধুরীকে প্রধান করে একটি অর্ডিনেন্স সংশোধনী কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অনুষদের ডিন এই কমিটির সদস্য থাকবেন। এ ছাড়া রোববার শিক্ষকদের সঙ্গে কতিপয় শিক্ষার্থীর অসৌজন্যমূলক আচরণের ঘটনার বিষয়েও বোর্ড সদস্য জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য শরীফ এনামুল কবিরকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে কমিটিকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

এদিকে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক মহিউদ্দিন তাসনিমের বিরুদ্ধে ওই বিভাগের এক শিক্ষার্থীর আনা যৌন হয়রানির অভিযোগ বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘যৌন নির্যাতন ও হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি’কে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সোমবার সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করে। দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পাঁচ ছাত্রলীগ নেতাকে বহিষ্কার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার এবং বিশ্ববিদ্যালয় অর্ডিনেন্স সংশোধনের দাবি জানানো হয়। এ ছাড়া পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নকারী ওই বিভাগের শিক্ষকের শাস্তি দাবি করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সজীব তালুকদার। এ সময় সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান, সহসভাপতি পান্না দাস ও ইমরান মিয়া, যুগ্ম সম্পাদক জাবির ইকবাল ও ইয়াসিন আরাফাত এবং শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনা শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

বিএ-০৬/০৯-১০ (শিক্ষা ডেস্ক, তথ্যসূত্র: প্রথম আলো)