শাকিব-অপুর বিবাহিত জীবন বাড়লো আরো একমাস

প্রকাশিতঃ ফেব্রুয়ারী ২২, ২০১৮ আপডেটঃ ৬:২৪ অপরাহ্ন

অপু বিশ্বাসকে শাকিব খানের তালাকের নোটিশ পাঠানোর নব্বই দিন পূর্ণ হয়েছে বৃহস্পতিবার। গুঞ্জন ‍ওঠেছিল এদিনই দুই তারকার তালাক কার্যকর হবে।

জানা গেছে, তিন দফা সালিশ বৈঠকের শেষ কিস্তি এখনো বাকি। তখন যদি সমঝোতা না হয়, তবেই কার্যকর হবে তালাক।

এর আগে ১২ জানুয়ারি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) কার্যালয়ে প্রথম বৈঠকে অপু হাজির হলেও ছিলেন না শাকিব। দ্বিতীয় কিস্তির বৈঠক ছিল ১২ ফেব্রুয়ারি। সেদিন কেউই ডিএনসিসি কার্যালয়ে যাননি।

ডিএনসিসি অঞ্চল-৩-এর নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত হোসেন জানান, শাকিব-অপুর তৃতীয় শুনানি হবে ১২ মার্চ। সেদিন সমঝোতা না হলে তালাক চূড়ান্ত হবে।

অবশ্য সমঝোতার কোনো লক্ষণ এখনো দেখা যাচ্ছে না। শাকিব বলছেন, এ সম্পর্ক নিয়ে আর ভাবছেন না। অন্যদিকে, শাকিবের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছেন অপু্।

২২ নভেম্বর আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলামের মাধ্যমে অপুর কাছে তালাকের নোটিশ পাঠান শাকিব খান।

আরও খবর : শাকিব-অপুর বিচ্ছেদ?

২০১৬ সালের মাঝামাঝিতে হঠাৎ আড়ালে চলে যান অপু বিশ্বাস। ২০১৭ সালের ১০ এপ্রিল সন্তান কোলে হাজির হলেন টিভি চ্যানেলে। সরাসরি সম্প্রচার হওয়া ওই অনুষ্ঠানে দাবি করেন, শাকিব খানের সঙ্গে ২০০৮ সালে বিয়ে হয় তার। ২০১৬ সালে জন্ম নিয়েছে ছেলে আব্রাম খান জয়।

আরো জানান, বিয়ে ও সন্তান হওয়ার খবর শাকিবের ক্যারিয়ারের কারণেই চেপে রেখেছিলেন। কিন্তু নায়কের অবহেলার কারণে প্রকাশ্যে সন্তান নিয়ে হাজির হতে বাধ্য হয়েছেন।

এ ঘটনায় দুই তারকার মধ্যকার টানাপোড়েন প্রকাশ্য হয়। এরপর মাত্র একবারই প্রকাশ্যে একসঙ্গে এসেছেন তারা।

সর্বশেষ অক্টোবরে নিকেতনে অপুর বাসায় ছেলেকে দেখতে গিয়ে শাকিব অভিযোগ তোলেন, জয়কে ঘরে তালাবন্ধ করে গৃহকর্মীর কাছে রেখে ভারতে গেছেন অপু। অভিযোগ নাকচ করে নায়িকা বলেন, বড়বোনের কাছে ছেলেকে রেখে যান তিনি। জরুরি চিকিৎসার কারণেই দুদিনের জন্য ভারতে যেতে হয়েছে তাকে।

এর কিছুদিন পরই অপুর বাসায় তালাকের নোটিশ পাঠান শাকিব।

২০০৬ সালে পরিচালক এফ আই মানিক পরিচালিত ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবিতে প্রথমবার পরস্পরের বিপরীতে অভিনয় করেন শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। ২০১৬ সাল পর্যন্ত এই জুটি ৭০টির মতো জনপ্রিয় ছবিতে অভিনয় করেন।

এসএইচ-২২/২২/০২ (বিনোদন ডেস্ক)