রেগে গেলেই সাইফের সঙ্গে বাংলায় ঝগড়া করেন শর্মিলা

যতই পতৌদিদের নবাব বংশের বউ হন আর স্থায়ী বসবাস হোক ভারতে, রক্তে যে আজও মিশে আছে বাংলা। আর তাই রেগে গেলে এখনও মাতৃভাষা বাংলাকেই হাতিয়ার করেন রবি ঠাকুরের বংশধর শর্মিলা ঠাকুর।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তার মেয়ে অভিনেত্রী সোহা আলি খান জানিয়েছেন, সাইফ আলি খানের সঙ্গে ঝগড়া বাধলেই নিমেষে বাঙালি মা হয়ে যান শর্মিলা ঠাকুর!

রাগ থেকে অভিমানের সব হিসেবনিকেশ মেটান খাঁটি বাংলায়! সোহা আর সাইফের কাছে বাংলা কোনো মিষ্টি ভাষা নয়। বরং তারা বুঝে গেছেন, বাংলায় কথা বলছেন মানেই মা রেগে আগুন!

এদিকে দাদা সাইফের সঙ্গে মায়ের তুমুল ঝগড়ার মিটমাট করাতে হয় আবার সোহা আলিকেই। কেননা দু’জনই তাকে ফোন করে পুরো ঘটনা বলেন। সত্যজিৎ রায়ের ‘দেবী’র অন্দর মহলের এ তথ্য ফাঁস করেছেন সোহা নিজেই।

পতৌদি বংশের নবাব, ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক মনসুর আলি খান পতৌদিকে বিয়ে করে পাকাপাকি ভাবে মুম্বইয়ের বাসিন্দা হন ঠাকুর বাড়ির শর্মিলা।

সত্যজিতের ‘অপুর সংসার’, ‘দেবী’, ‘নায়ক’, ‘অরণ্যের দিনরাত্রি’র মতো একাধিক বাংলা ছবিতে অভিনয় করে দর্শকদের মন জয় করে নেন শর্মিলা ঠাকুর। এরপর বলিউডেও অসংখ্য সিনেমায় দাপটে বেড়িয়েছেন এই গুণী শিল্পী।

এসএইচ-১২/১৪/২২ (বিনোদন ডেস্ক)

Exit mobile version