খোলামেলা পোশাকে তরমুজের মতো বুক দেখায় মেয়েরা!

প্রকাশিতঃ মার্চ ২২, ২০১৮ আপডেটঃ ১০:৪৩ অপরাহ্ন

ভারতের কেরালায় মুসলিম নারীদের পোশাক নিয়ে এক অধ্যাপকের অশালীন ও কুরুচিকর মন্তব্যে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। ফারুক ট্রেনিং কলেজের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর জৌহর মুনাভীর অভিযোগ তুলে বলেন, ‘মেয়েরা পড়তে এসে খোলামেলা পোশাকে তরমুজের মতো বুক দেখায়’!

এ মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করে গত সোমবার প্রতিষ্ঠানের সদর দরজায় তরমুজ নিয়ে বিক্ষোভ দেখান ছাত্রছাত্রীরা। অভিযুক্ত শিক্ষিকার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে।

মুসলিম পরিবারদের নিয়ে এক জমায়েতে বক্তব্য রাখতে গিয়ে জৌহর মুনাভীর বলেন, ‘মেয়েরা ঠিকমতো হিজাব পরছে না। তারা ইচ্ছে করে তাদের বুক দেখাচ্ছে। যেন তরমুজের টুকরোর প্রদর্শনী করা হয়েছে।’

আরও খবর : ময়লা মনে করে দুই নবজাতককে ডাস্টবিনে ফেলে দিল ফুফু!

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই মন্তব্যের ভিডিয়ো ক্লিপ ছড়িয়ে পড়ার পরই বিক্ষোভের আগুন জ্বলে ওঠে কোঝিকোড়তে। এই মন্তব্যের প্রতিবাদে প্রতিষ্ঠানে তুমুল বিক্ষোভ দেখায় ছাত্রীরা।

কলেজের গেটের সামনে তরমুজ ফাটিয়ে চলে বিক্ষোভ। একদল সমাজকর্মী আবার সবাইকে তরমুজ বিতরণ করে প্রতিবাদ জানান। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ।

ছাত্রীদের লেগিংস পরা নিয়েও মন্তব্য করে ওই শিক্ষিকা বলেছেন, ‘এই ক্যাম্পাসের ৮০% পড়–য়াই ছাত্রী। আর বেশিরভাগই মুসলিম। তারা পর্দা পরে। তবে সেটাকে তুলে রাখে লেগিংস দেখানোর জন্য।

মেয়েরা আজকাল ওড়না পরে না। কিন্তু স্কার্ফ বা শাল দিয়ে মাথা ঢেকে রাখে। মেয়েদের শরীরের যে অংশ একজন পুরুষ বা ইসলামের শিক্ষকদের আকর্ষণ করে তা হল বুক। কাজেই তা ঢেকে রাখা উচিত।’

এই মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করে কালীকট বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রসংসদের চেয়ারপার্সন সুজা পি বলেছেন, ‘শিক্ষকদের আমাদের মুখের দিকে তাকিয়ে পড়ানো উচিত, শরীরের দিকে তাকিয়ে নয়।’

আর কলেজের প্রিন্সিপালের যুক্তি, তিন মাস আগে কলেজের বাইরে ওই মন্তব্য করেছিলেন শিক্ষিকা। এখনও কোনও অভিযোগ আসেনি। কাজেই কলেজ কোনও ব্যবস্থা নিতে পারে না।

এসএইচ-২৫/২২/০৩ (অনলাইন ডেস্ক)