রক্তের গরম পুকুর! (ভিডিও)

প্রকাশিতঃ মে ২৬, ২০১৮ আপডেটঃ ৪:৫৬ অপরাহ্ন

জাপানের সবথেকে বেশি গরম জল প্রবাহিত হয় এই বৃহত্তম রক্ত পুকুর থেকে। পুকুরের পানির রং লাল হবার কারনে পুকুরটিকে রক্তের পুকুর বলা হয়। অনেকে এই পুকুরকে নরকের পুকুরও বলেন। এখানে সফরে আসলে বিভিন্ন অদ্ভুদ দৃশ্য দেখা যায়। বেপ্পু ‘ওইটা’ এর কেন্দ্রীয় অংশে অবস্থিত। এটি মেগাটনের সঙ্গে সমুদ্রের সম্মুখ অংশে অবস্থিত। এর বাকি অংশ আগ্নেয়গিরির সাথে সংযুক্ত। প্রাকৃতিকগত কারনেই এই পুকুরের পানির রং লাল।

পুকুরের গরম জল শহরের বিভিন্ন অংশে প্রবাহিত করা হয়। বেপ্পু জাপানের প্রথম প্রবাহিত পুকুর যার রাসায়নিক বৈশিষ্ট্য এবং উৎস এর কারনে বিশ্বে এর একটি উচ্চ স্থান রয়েছে। পুকুরের পানি গরম হবার কারনে এখানে অনেকগুলো স্পা তৈরি করা হয়েছে।

বেপ্পু-অন্সেন স্পা আটটি গরম বসন্ত এলাকা নিয়ে গঠিত। যার মধ্যে হামাওয়াকি, বেপ্পু, কানকাইজি, মিওবান, কান্নাওয়া ইত্যাদি রয়েছে। যাদেরকে সম্মিলিতভাবে “বেপ্পু হাত্ত” বলা হয়। এসব এলাকায় বিভিন্ন উন্নত মানের স্পা রয়েছে। যা আধুনিক মান সম্পন্ন এবং বিভিন্ন আধুনিক পণ্যে সমৃদ্ধ।

আরও খবর : ছাত্রকে কাছে পেতে শিক্ষিকার তুলকালাম কাণ্ড

রক্তের পুকুরে যাবার পথে কান্নাওয়া নামের একটি সরু পথ রয়েছে। এই পথে ভ্রমণের সময় বেপ্পু স্পা এর হাইলাইট দৃশ্য খুব সুচারুভাবে দেখা যায়। এখানে যে আটটি পুকুর মিলিত হয়েছে, তার মধ্যে বিভিন্ন রং রয়েছে। ঊর্মি জিগকু বা সি হেল এর রং গাড় নীল বর্ণের। এই নীল রং কোবল্ট এর কারনে হয়েছে। লাল গলিত কাদামাটির কারনে বেপ্পু এর রং লাল। আবারের ভ্রমণপথে টাটসুমাকি জিগোকু নামের একটি উষ্ণপ্রস্রবণ রয়েছে।

বেপ্পু এর আশেপাশে কিছু আরামদায়ক রিসোর্ট রয়েছে। যেখানে অবসরে বেশকিছু কার্যকলাপের সুযোগ রয়েছে। কিছু প্রাকৃতিক ভুমি পার্ক রয়েছে। যা খুব ভাল পর্যটন কেন্দ্র। সেখানে কিছু প্রাকৃতিক মনুমেন্ট ও লেক রয়েছে। আশেপাশে পার্বত্য অঞ্চল থাকার কারনে বিভিন্ন পর্বতে অবাধ বিচরণ করা যায়।

টোকিও থেকে যাবার দিক নির্দেশনা-

টোকিও হানেদা এয়ারপোর্ট থেকে ওইটা এয়ারপোর্ট এক ঘণ্টা ৪০ মিনিট দূরে। আবার ওসাকা ইতামি এয়ারপোর্ট হতে ৪৫ মিনিট দূরে ওইটা এয়ারপোর্ট। ওইটা এয়ারপোর্ট হতে বেপ্পুতে বাস এ করে যেতে প্রায় ৪৫ মিনিট সময় লাগে। আর যদি ওইটা রেলওয়ে স্টেশন হতে ওইটা স্টেশন এ জে আর নিপ্প হন্সেন লাইনে যাওয়া যায়, তাহলে মাত্র ১২ মিনিট সময় লাগবে।

এসএইচ-৩২/২৬/০৫ (অনলাইন ডেস্ক)