প্রেমিকাকে গলায় ফাঁস দেওয়া ছবি পাঠিয়ে আত্মঘাতী প্রেমিক

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ১০, ২০১৮ আপডেটঃ ৩:৪৫ অপরাহ্ন

প্রেমিকাকে গলায় ফাঁস দেওয়া ছবি পাঠিয়ে আত্মঘাতী হলেন প্রেমিক। উত্তর ২৪ পরগনার অশোকনগর থানার কঁাকপুলের ঘটনা। পুলিশ জানিয়েছে, মৃত যুবকের নাম তুহিন দুবে (২২)। যদিও ওই তরুণীর বিরুদ্ধে পুলিসের কাছে কোনও অভিযোগ করেনি মৃতের পরিবার। ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

পুলিশ এবং পরিবার সূত্রে জানা গেছে, হাবড়ার হিজলপুকুর এলাকার এক যুবতীর সঙ্গে বছর দেড়েক ধরে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয় অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের পড়ুয়া তুহিনের। যদিও ওই যুবতীর এর আগে একবার অন্যত্র বিয়ে হয়েছিল। কিন্তু বিভিন্ন কারণে সেই সম্পর্ক বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। তারপর থেকে ওই যুবতী বাপের বাড়িতেই থাকতেন। সবকিছু জেনেশুনেই তাঁর সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান তুহিন। তিন বোনের পর একমাত্র ভাই তিনি। পড়াশোনার পাশাপাশি বাবার ব্যবসায়ও সাহায্য করতেন তুহিন।

যেহেতু তুহিন পড়াশোনা করছেন, তাই ভালবাসার সম্পর্ক তৈরি হলেও চাকরি পাওয়ার পর তাঁদের বিয়ে হবে, অলিখিতভাবে এমনই স্থির হয় দুই পরিবারে। এই বোঝাপড়ার মাধ্যমে দু’‌জনেরই দুই পরিবারে যাতায়াত ছিল অবাধ। সেইভাবে মেলামেশাও করতেন তঁারা। এই সম্পর্কের কথা তঁাদের বন্ধু মহলেও ছড়িয়ে পড়েছিল।

চাকরি পাওয়ার জন্য প্রায় দিনই তুহিন সারারাত পড়াশোনা করতেন। সম্প্রতি তুহিন এবং তাঁদের প্রেমিকার সম্পর্কে টানাপোড়েন শুরু হয়। সোমবার গভীর রাত পর্যন্ত মান–অভিমানের নানারকম মেসেজ আদানপ্রদান হয়। তার মধ্যে গলায় ফঁাস দেওয়া একটি ছবিও নিজের মোবাইলে তুলে প্রেমিকাকে পাঠিয়ে তাঁকে বিদায় জানান তুহিন। অবশেষে ভোররাতে মায়ের শাড়ি গলায় জড়িয়ে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আত্মঘাতী হন তিনি।

তুহিনের ছোট দিদি বনি দুবে বলেন, ‘‌মেয়েটির সঙ্গে আমাদের পরিবারে সকলের কথা হত। ও যখন দেখল আমার ভাই ওকে আত্মহত্যা করার হুমকি দিয়ে ছবি পাঠাচ্ছে, তখনও যদি আমাদের ফোন করে বিষয়টি জানাত, তাহলে আমার ভাইকে হারাতে হত না। এই মৃত্যুর জন্য ওর প্রেমিকা দায়ী থাকলেও আমরা তঁার পরিবারের কথা ভেবে পুলিসের কাছে কোনও অভিযোগ জানাতে চাইছে না।’

এসএইচ-০৩/১০/১০ (অনলাইন ডেস্ক)