তাজমহলের ফটকে হামলা, অভিযুক্ত বিশ্ব হিন্দু পরিষদ

প্রকাশিতঃ জুন ১৩, ২০১৮ আপডেটঃ ১০:০২ অপরাহ্ন

আক্রান্ত স্বপ্নের তাজমহল! মুঘল স্থাপত্যশৈলীর অন্যতম সেরা এই নিদর্শনটি নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই। রোববার হামলা চলে তাজের পশ্চিম ফটকে। অভিযোগ, হামলা চালায় বিশ্ব হিন্দু পরিষদের (ভিএইচপি) একদল কর্মী। লোহার রড ও হাতুড়ি দিয়ে ভাঙার চেষ্টা করা হয় ওই প্রবেশদ্বারটি।

কিন্তু বুধবার পর্যন্ত ওই ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি আগ্রা পুলিশ। অধরা রয়ে গেল অভিযুক্তরাই। ভিডিও ফুটেজে হামলাকারীরদের শনাক্ত করা গেলেও কেন এখনও ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট’-এর উপর হামলা চালানোর ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করা হল না তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করা হয়েছে।

তাজমহলের কাছেই একটি এলাকায় নির্মাণ কাজের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে জায়গাটি। তৈরি করা হয়েছে তাজের একটি অস্থায়ী ফটক। ভিএইচপি-র দাবি, এই সব কারণে ৪০০ বছরের পুরনো একটি শিবমন্দিরে যেতে অসুবিধা হচ্ছে। শিবমন্দিরে তাদের প্রবেশে নাকি বাধা দিচ্ছে দেশের প্রত্নতাত্ত্বিক সর্বেক্ষণ (এএসআই)।

আরও খবর: ফের পাকিস্তানি সেনার গুলিতে ৪ বিএসএফ নিহত

সেই কারণেই তারা শুধুমাত্র প্রতিবাদ জানিয়েছে। বাসাই ঘাটের দিকে পশ্চিম প্রবেশদ্বার ভাঙচুরের চেষ্টা চালানোই শুধু নয়, প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ যে অস্থায়ী ফটক নির্মাণ করেছিল, তা-ও ওই দিন সরিয়ে নিয়েছে ভিএইচপি কর্মীরা।

পুলিশের বক্তব্য, সিদ্ধেশর মহাদেব মন্দির নামে ওই মন্দিরটিতে যাওয়ার জন্য পৃথক রাস্তাও করে দেওয়া হয়েছে। তবে তাতে মোটেও খুশি নয় ওই সংগঠন। তাই ‘এএসআই হঠাও’ স্লোগান দিয়ে রোববার তাজের সামনে বিক্ষোভ দেখায় তারা। অভিযোগ, এএসআইয়ের সিদ্ধান্তেই মন্দিরে যেতে বাধা পড়ছে তাদের।

ওই ঘটনায় ভিএইচপি-র পাঁচ সদস্য ও আরও বেশ কয়েকটি অজ্ঞাতপরিচয় সংগঠনের নামে লুঠপাট চালানো, সরকারি আধিকারিকদের উপর হামলা, কর্তব্যপালনে বাধা দেওয়া এবং দাঙ্গা বাধানোর চেষ্টার অভিযোগে এফআইআর দায়ের হয়েছে।

তাজমহলের নিরাপত্তা বিভাগের এক আধিকারিক প্রভাত কুমার বলেন, ‘‘ওই দিনের হামলার সময় এএসআইয়ের তৈরি অস্থায়ী ফটকটি ভেঙে তা ৫০ মিটার দূরে ছুড়ে ফেলা দেওয়া হয়। পুলিশ এসে অবস্থা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু কাউকে ধরতে পারেনি তারা।’’

এফআইআরে নাম রয়েছে ভিএইচপি সদস্য রবি দুবের । তিনি সংবাদ সংস্থাকে বলেন, ‘‘এএসআইয়ের সঙ্গে সংঘাত অনেক দিন ধরেই। কারণ, ওই ফটকের কাছে সৎসঙ্গ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ১৫ বছর আগে। এ ছাড়া দশেরা উপলক্ষ্যে মেলাও বন্ধ হয়ে গিয়েছে।

তাজমহলের কাছে ‘আমলা নবমী’ পালনও বন্ধ করে দিয়েছে তারা। এমনকি, একটা আমলকি গাছও কেটে দিয়েছে। এ বার শিবমন্দিরে যেতেও অসুবিধা হচ্ছে। এ ভাবে আর চলতে দেওয়া যায় না। তাই এই প্রতিবাদ চলতেই থাকবে।’’

বিএ-১৬/১৩-০৬ (আন্তর্জাতিক ডেস্ক, তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার)