সরে দাঁড়ালেন থেরেসা মে

প্রকাশিতঃ জুন ৭, ২০১৯ আপডেটঃ ১০:৩১ অপরাহ্ন

ব্রেক্সিট ইস্যুতে সমঝোতায় পৌঁছাতে ব্যর্থতার দায় মাথায় নিয়ে যুক্তরাজ্যের ক্ষমতাসীন দল কনজারভেটিভ পার্টির প্রধানের পদ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে পদত্যাগ করেছেন থেরেসা মে।

শুক্রবার নিজ দল কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্ব থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে সরে দাঁড়ান তিনি। তবে নিজেদের উত্তরসূরী খুঁজে না পাওয়া পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী পদে বহাল থাকছেন তিনি।

এর আগে তিনি পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছিলেন। সে সময় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বেক্সিট ইস্যু সফল করতে ব্যর্থ হওয়ার অনুতাপ প্রকাশ করেছিলেন তিনি। তিনবার বেক্সিট ভোটে হেরে যাওয়ায় ব্যাপক চাপের মুখে ছিলেন মে।

থেরেসা মে ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত এক গণভোটে ব্রেক্সিটের পক্ষে রায় আসার পর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। দায়িত্ব গ্রহণ করার পর তিনি ব্রেক্সিট পরিকল্পনা নিয়ে তিন বছর কাজ করেছেন। কিন্তু কোনো সমাধানে পৌঁছতে পারেননি মে।

এদিকে আগামী জুলাইয়ের শেষের দিকে নতুন নেতা নির্বাচন করা হতে পারে। সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসনসহ সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রীর তালিকায় ১১ কনজারভেটিভ এমপিকে রাখা হয়েছে।

আগামী সোমবারের মধ্যে কয়েকজন ঝরে পড়তে পারেন। সোমবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন।

এর আগে পদত্যাগের ঘোষণায় মে বলেছিলেন, বেক্সিট সফল করতে আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি। কিন্তু পর পর তিনবার ব্যর্থ হয়েছি।

এছাড়া গত মে মাসে টোরি এমপিদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মের এক বৈঠকের পরই পদত্যাগের বিষয়ে সম্মতি জানান তিনি। সে সময়ই পরবর্তী নির্বাচনের সময়সীমাও জানিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন মে।

এসএইচ-১৮/০৭/১৯ (আন্তর্জাতিক ডেস্ক)