যে কোনো সময় ভারতে ঢুকবে হাজারো পাকিস্তানি

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ৬, ২০১৯ আপডেটঃ ৮:৫০ অপরাহ্ন

দলে দলে হাজার হাজার পাকিস্তানি এগিয়ে চলেছে নিয়ন্ত্রণরেখার (লাইন অব কন্ট্রোল) দিকে। তারা সবাই আজাদ-কাশ্মীরের বাসিন্দা। ৩৭০ ধারা বাতিলের প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছে তারা। ভারতীয় গণমাধ্যমের দাবি, জম্মু-কাশ্মীর লিবারেশন ফ্রন্টের(জেকেএলএফ) উস্কানিতে সবাই জড়ো হতে চলেছে সীমান্তের ওপারে নিয়ন্ত্রণরেখার কাছে। প্রতিবাদকারীরা যে কোনো সময় নিয়ন্ত্রণরেখা অতিক্রম করে শ্রীনগরে ঢুকবে বলে আশঙ্কা করছে ভারত।

গোটা পরিস্থিতির উপর নজর রাখছে ভারত ও পাকিস্তানের সেনাবাহিনী। যদিও শনিবার কাশ্মীরিদের নিয়ন্ত্রণরেখা অতিক্রম না করার আহ্বান জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সেই সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সাবধান করে তিনি জানান, ভারত কিন্তু এই ‘শান্তিপূর্ণ’ মিছিলে হামলা চালাতে পারে। তাই যারা সেখানে জড়ো হতে চলেছেন তারা নিয়ন্ত্রণরেখা অতিক্রম করবেন না।

মিছিলে অংশগ্রহণকারী অধিকাংশ কমবয়সী যুবক। যদিও বিক্ষোভকারী দলে কিছু নারীও রয়েছেন। শনিবার তারা পায়ে হেটে গারহি দুপাট্টা এসে পৌঁছায়। সকলেই জেকেএলএফের সদস্য। সংগঠনের তরফে দাবি করা হয়েছে, মুজফফরবাদে পৌঁছনোর সময় সংখ্যাটা ৩০০০ কাছাকাছি চলে যাবে। সেখান থেকে বিক্ষোভকারীদের মুজফফরবাদ-শ্রীনগর হাইওয়ে ধরে নিয়ন্ত্রণরেখায় যাওয়ার কথা।

ইতিমধ্যে বিক্ষোভকারীরা হুঁশিয়ারি দিয়ে জানিয়েছে, তারা নিয়ন্ত্রণরেখা অতিক্রম করবে এবং শ্রীনগর যাবে। এ প্রসঙ্গে জেকেএলএফের মুখপাত্র রাফিক দর জানান, তাদের এলওসি অতিক্রম করার বৈধ অধিকার রয়েছে। কারণ, এই সীমান্ত তারা মানেন না। তাছাড়া জাতিসংঘের প্রস্তাবে বলা আছে, কাশ্মীরের দুই প্রান্তে যাতায়াতে কোনও বাধা নেই।

এদিনই তাদের চাকৌথি পৌঁছনোর কথা। সূত্রের খবর, চাকৌথিতে থেমে যেতে পারে বিক্ষোভকারীদের মিছিল। কারণ সেখানে বিশাল নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। রয়েছে অশান্তির আশঙ্কাও।

এসএইচ-০৪/০৬/১৯ (আন্তর্জাতিক ডেস্ক, তথ্য সূত্র : কলকাতা টাইমস)