আগামী কয়েক দিনের মধ্যে সব স্পষ্ট হয়ে যাবে: মির্জা ফখরুল

বাংলাদেশ এক ‘ভয়াবহ’ অবস্থার মধ্যে আছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব থাকবে কি না, গণতান্ত্রিক অধিকার থাকবে কি না, জনগণ তার প্রতিনিধি নির্বাচিত করতে পারবে কি না—সবকিছু নির্ভর করছে আগামী কয়েকটা দিনের ওপর।

বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে সাবেক বিএনপি নেতা আ স ম হান্নান শাহর সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণ সভায় মির্জা ফখরুল ইসলাম এসব কথা বলেন।

এই অবস্থা থেকে বেরোতে না পারলে গোটা জাতির অস্তিত্ব বিপন্ন হবে বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল।

সাধারণ মানুষকে রাজপথে নামিয়ে আনার আহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমার একটাই কথা, যাঁরা সংগ্রাম করছেন, তাঁদের আরও বেশি করে শক্তিশালী হয়ে এই সংগ্রামকে রাজপথে বিস্তৃত করে দিয়ে সাধারণ মানুষকে নামিয়ে আনতে হবে। সাধারণ মানুষকে যখন রাজপথে নামিয়ে আনতে পুরোপুরিভাবে সক্ষম হব, সেদিনই আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত হবে।’

বিএনপির মহাসচিব আবারও বলেন, শেখ হাসিনার অধীনে এ দেশের মানুষ কোনো নির্বাচন করবে না। অন্য সব রাজনৈতিক দলও একই কথা বলছে।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে এখন বিএনপিকে ভাঙার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল। নতুন দল তৃণমূল বিএনপিতে সাবেক দুই নেতার যোগদানের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘ওরা কতটা রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে…এখন দল ভাঙার চেষ্টা করে। দল কখন ভাঙতে যায়, যখন সে বোঝে দুর্বল। আজকে তারা আমাদের দলছুট, বহিষ্কৃত লোকজনকে নিয়ে আবার দল তৈরি করে ঝামেলা করতে চায়। আমরা খুব পরিষ্কারভাবে বলছি, এগুলো করে কোনো লাভ হবে না।’

মির্জা ফখরুল বলেন, মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছে। মানুষ একটা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন চায় সব দলের অংশগ্রহণে। এর বিকল্প তারা কিছু চায় না, মেনেও নেবে না।

এআর-০২/২৭/০৯ (জাতীয় ডেস্ক)