ওমলেট, সিদ্ধ বা পোচ, জেনে নিন কীভাবে ডিম খেলে পুষ্টি হবে সবচেয়ে বেশি

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ আপডেটঃ ৫:০৭ অপরাহ্ন

ডিম খেতে কে না ভালবাসে? কারও পছন্দ পেঁয়াজ, লঙ্কা দিয়ে জমিয়ে ওমলেট, কারও চাই পোচ, তো কেই চায় ভাতের পাতে কষা কষা ডিমের ডালনা৷ ডিম সব রকম ভাবেই পুষ্টিকর৷ জেনে নিন কীভাবে ডিম খেলে পুষ্টি হবে সর্বাধিক৷

ওমলেটে যেহেতু বেশ কিছু সব্জি দেওয়া হয় তাই ডিমের প্রোটিনের সঙ্গে সব্জির ভিটামিনও পায় শরীর৷ কিন্তু ওমলেট অনেকক্ষণ ধরে বেশি আঁচে ভাজার কারণে কুসুমে থাকা কিছু মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট নষ্ট হয়ে যায়৷

ডিম সম্পূর্ণ সিদ্ধ হতে ৮-১০ মিনিট হয়৷ যেহেতু সিদ্ধ পুরোটাই জলে হয় তাই সম্পূর্ণ ফ্যাট ফ্রি কুকিং৷ কিন্তু এর ফলে ডিমের সাদা অংশের কিছুটা খোসায় লেগে নষ্ট হয়৷ তাই প্রোটিনের পরিমাণ কমে যায় কিছুটা৷ আবার বেশিক্ষণ চড়া আঁচে সিদ্ধ হওয়ার ফলে কুসুমে থাকা অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট লুটেন নষ্ট হয়ে যায়৷

ফুল বয়েলড ডিমের মতোই হাফ বয়েলড ডিমও ফ্যাট ফ্রি কুকিং৷ এতে কুসুমের অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টও অনেকটাই বজায় থাকে৷ তবে ডিমের খোসা ছাড়াতে গিয়ে প্রায় পুরো সাদা অংশটাই বেরিয়ে যায়৷ ফলে সাদা অংশের প্রোটিন প্রায় পাওয়াই যায় না৷

পোচড ডিমে কুসুম একেবারেই টলটলে থাকে৷ ফলে কুসুমের পুষ্টি সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায় পোচড খেলেই৷ তবে খুব ভাল মানের ডিম না হলে পোচ খাওয়া উচিত নয়৷ বাসি ডিম হলে জলে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সাদা অংশ বুরবুরি কাটতে শুরু করে৷ এতে সাদা অংশের প্রোটিন অনেকটাই চলে যায়৷

স্ক্র্যাম্বলড এগ খাওয়ার সময় সবচেয়ে ভাল হয় যদি সাদা অংশ ও কুসুম একসঙ্গে খাওয়া হয়৷ এতে ডিম খুব তাড়াতাড়ি ফ্লাফি হয়ে যায়৷ ফলে বেশি আঁচে পুষ্টি নষ্ট হয় না৷ তবে স্ক্র্যাম্বলড এগ মানেই ওভারকুকড এগ৷ তাই এতে ডিমের ভিটামিন বি১২ অনেকটাই নষ্ট হয়ে যায়৷

তবে ডিমের সব পদের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় সানি সাইড আপ৷ ঠিকমতো বানালে এতে কুসুম টলটলে থাকায় পুরো পুষ্টিই বজায় থাকে৷ কিন্তু এতে ডিম ওল্টানো হয় না৷ ফলে শুধু একপিঠই রান্না হয়৷ ফলে থেকে যেতা পারে ব্যাকটেরিয়া৷

এবার আসা যাক ফ্রায়েড এগের প্রসঙ্গে৷ ফ্রায়েড এগ দুধরনের হয়৷ একভাবে দুপিঠ ভাজা হলেও বিতরে কুসুম টলটলে থাকে৷ এর ফলে সানি সাইড আপের ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের ভয় কমে যায়৷ কারণ সাদা অংশ পুরোপুরি ভাজা হচ্ছে৷ কিন্তু ডিম উল্টে দেওয়া মানেই উল্টো পিঠেও কিছুটা তেল লাগছে৷ ফলে এই ডিমে কিছুটা ফ্যাট খাওয়া হয়েই যায়৷

এবার আসি দ্বিতীয় রকম ফ্রায়েড এগের কথায়৷ এতে ডিম উল্টে পাল্টে এমন ভাবে ভাজা হয় যাতে কুসুমও পুরোপুরি সিদ্ধ হয়৷ তবে এতে ডিমের পুষ্টির বেশিটাই নষ্ট হয়ে যায়৷ ডিমের অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট জ্যান্থোফিলস-এর ১৮ শতাংশ নষ্ট হয়ে যায়৷

স্বাস্থ্যের কারণে এখন অনেকেই এগ হোয়াইট খান শুধু৷ গোটা ডিমে যেখানে প্রোটিনের পরিমাণ ৬ গ্রাম ও ক্যালোরি ৬০, সেখানে শুধু এগ হোয়াইটেই রয়েছে ৩ গ্রাম প্রোটিন৷ অথচ ক্যালোরি মাত্র ১৫৷ তবে এগ হোয়াইট খেলে কুসুমে থাকা সেলেনিয়াম, রাইবোফ্লাভিন, ভিটামিন ডি, ফসফরাস, ভিটামিন বি১২, ফোলেট, আয়রন, ভিটামিন এ, ভিটামিন বি৬ ও কোলিন কিছুই পায় না শরীর৷

সবশেষে আসি কাঁচা ডিমের কথায়৷ যারা শরীরচর্চা করেন তারা অনেকেই কাঁচা ডিম খান৷ নিঃসন্দেহে কাঁচা ডিমে ভিটামিন এ-র পরিমাণ সবচেয়ে বেশি থাকে৷ তবে কাঁচা ডিম থেকে সালমোনেল্লা ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের ঝুঁকিও সবচেয়ে বেশি৷

আরএম-২৫/১১/০৯ (লাইফস্টাইল ডেস্ক, তথ্যসূত্র: নিউজ১৮)