‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহতের সংখ্যা কমছে না!

প্রকাশিতঃ ডিসেম্বর ২, ২০১৯ আপডেটঃ ৩:২৫ অপরাহ্ন

দেশে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহতের সংখ্যা কমছে না৷ নভেম্বরেই অন্তত ১৭ জন নিহত হয়েছেন৷ মানবাধিকারকর্মী ও বিশেষজ্ঞদের মতে সরকারের নীতি নির্ধারকদের মধ্যে ক্রসফায়ারের পক্ষে এক ধরনের অবস্থান আছে৷ যে কারণে এমন ঘটনা বন্ধ হচ্ছে না৷

মানবাধিবার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের(আসক) হিসেব বলছে, অক্টোবরে দেশে ‘ক্রসফায়ারে’ ৩১ জন নিহত হয়েছেন৷ সব মিলিয়ে জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর দাবি করা বন্দুকযুদ্ধ বা ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছেন অন্তত ৩৬১ জন৷

সর্বশেষ সাতক্ষীরায় যে দুইজন নিহত হয়েছেন তারা ছাত্রলীগের সাতক্ষীরা জেলার সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমান সাদিকের দেহরক্ষী হিসেবে পরিচিত৷ তাদের নাম দীপ আজাদ ও সাইফুল ইসলাম৷ স্থানীয় সংসদ সংসদ সদস্য জানান তারা কোনো ধরনের সন্ত্রাসীমূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে তার জানা নেই৷ তবে পুলিশ দাবি করেছে দীপ ও সাইফুল এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও অস্ত্রধারী৷ সম্প্রতি এক ব্যক্তির ২৬ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের সঙ্গে তারা জড়িত ছিলেন৷

তার আগে ২৮ নভেম্বর নোয়াখালীতে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন ইব্রাহিম খলিল নামের এক ব্যক্তি৷ তার বিরুদ্ধে মাদক, চোরাকারবারসহ বিভিন্ন অভিযোগে থানায় মামলা রয়েছে বলে সংবাদমধ্যমকে জানিয়েছে পুলিশ৷

আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কথিত ক্রসফায়ার বা বন্দুকযুদ্ধে ২০১৬ সালে মোট ১৭৭ জন নিহত হয়েছেন৷ ২০১৭ সালে এই সংখ্যা কমে ১৪১ জনে নেমে আসে৷ এরপর থেকে গতি আবার বাড়তে শুরু করে৷ ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে জাতীয় নির্বাচন এবং মাদকবিরোধী অভিযান ক্রসফায়ারের নতুন প্রেক্ষাপট তৈরি করে৷ গত বছর আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয় ৪২১ জন, যা আগের বছরের তুলনায় তিনগুণ বেশি৷

২০১৯ সালেও এই ধারা অব্যাহত আছে৷ বছরের একমাস বাকি থাকতেই ক্রসফায়ার বা বন্দুকযুদ্ধে নিহতের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৩৬১ জনে৷ আসক বলছে সবশেষ মাসের তথ্য তারা সংবাদপত্র থেকে সংগ্রহ করেছে৷ তাই নিহতের প্রকৃত সংখ্যা এরচেয়ে বেশি হতে পারে৷

চলতি বছরের অক্টোবর পর্যন্ত ক্রসফায়ারে নিহতদের মধ্যে ৪০ জন রোহিঙ্গা শরণার্থীও রয়েছেন৷

বছরের প্রথম ১০ মাসের ক্রসফায়ারের হিসাব বিশ্লেষণ করে দেখা যায় ২৪৫ জনই আটকের আগেই বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন৷ আটকের পরে নিহত ৭৭ জন৷ সরাসরি গুলিতে হত্যার শিকার হয়েছেন ১০ জন৷ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর মধ্যে চলতি বছর সবচেয়ে বেশি ক্রসফায়ারের ঘটনা সাথে সম্পৃক্ত ছিল পুলিশ৷ এরপর রয়েছে র‌্যাব, বিজিবি ও ডিবি৷

মাদক বিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকা আর আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নয়নে সরকারের ‘শর্টকাট’ নীতিকে দায়ী করেছেন আসক-এর সাবেক নির্বাহী পরিচালক এবং মানবাধিকার কর্মী নূর খান৷ তিনি বলেন, ‘‘সরকারসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনী প্রতিনিয়তই ভূত দেখার মতো সব কিছুতেই ভয় পায়৷ ফলে এই বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে একটা ভয়ের পরিবেশ সৃষ্টি করে রাখতে চাইছে৷ যাতে মানুষ তাদের কোনো দাবি দাওয়া নিয়ে প্রতিবাদ করতে সাহস না পায়৷”

তিনি বলেন, ‘‘বিচারের প্রতিও মানুষের এক ধরনের আস্থাহীনতা তৈরি হয়েছে৷ সেটার একটা সমাধান হিসেবেও ক্রসফায়ারকে বেছে নেয়া হচ্ছে৷”

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল তাদের এক প্রতিবেদনে অবিলম্বে ক্রসফায়ার, বন্দুকযুদ্ধ বন্ধে সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছে৷ তাদের হিসাবে গত বছর বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূতভাবে মোট ৪৬৬ জনকে হত্যা করা হয়েছে৷ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ঘোষিত ‘মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধে’ গড়ে প্রতিদিন কমপক্ষে একজনের মৃত্যু হয়েছে৷ অ্যামনেস্টি বলছে, এসব ঘটনার যথাযথ তদন্ত না করে সরকার বন্দুকযুদ্ধ, ক্রসফায়ারকে উল্টো সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে৷ পুলিশ এইসব ঘটনায় বানোয়াট প্রত্যক্ষদর্শী তৈরি করে তাদের কাছ থেকে মিথ্যা বিবৃতি আদায় করছে বলেও অভিযোগ সংস্থাটির৷

মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘‘কোনোভাবেই এই বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড মেনে নেয়া যায় না৷ সরকারের মধ্যে একটি মনোভাব কাজ করছে যে উন্নয়নের স্বার্থে এগুলো মেনে নিতে হবে৷ কিন্তু মানবাধিকারের অবনতি ঘটিয়ে কোনো উন্নয়নই টেকসই হয় না৷ মানবাধিকার ছাড়া উন্নয়ন হয় না৷”

প্রতিটি ক্রসফয়ারের তদন্ত হয় বলে সরকার দাবি করে৷ কিন্তু ড. মিজান বলেন, ‘‘যারা এই ঘটনার সাথে জড়িত তারাই এর তদন্ত করে৷ তাই এটা গ্রহণযোগ্য নয়৷ আমরা বারবারই স্বাধীন বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করে আসছি৷”

তিনি আরো বলেন, ‘‘উদ্বেগের বিষয় হলো একজন সাবেক মন্ত্রী যিনি আবার আইনের ছাত্র তিনি সংসদে বলেছেন পেঁয়াজের যারা দাম বাড়িয়েছে তাদেরও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের মত ক্রসফায়ারে দিতে হবে৷ একজন মন্ত্রী যখন সংসদে এই ধরনের কথা বলেন সেখানেতো ক্রসফায়ার কমার কোনো কারণ নেই৷ সরকারের নীতি নির্ধারকদের মধ্যে ক্রসফায়ারের পক্ষে এক ধরনের অবস্থান আছে৷”

এসএইচ-০৫/০২/১৯ (হারুন উর রশীদ স্বপন, ডয়চে ভেলে)