চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ইউএনওর জিডি!

প্রকাশিতঃ জানুয়ারী ২৩, ২০১৮ আপডেটঃ ৭:৪৭ অপরাহ্ন

শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার চেয়ারম্যান সৈয়দ নাসির উদ্দিনের বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে। আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে হুমকি দেওয়ার অভিযোগে ওই উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন শিবলি সোমবার রাতে সাধারণ ডায়েরিটি করেন।

সাধারণ ডায়েরি ও গোসাইরহাট থানা সূত্রে জানা গেছে, সোমবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা সম্মেলন কক্ষে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি ও নৈশপ্রহরী নিয়োগসংক্রান্ত সভা চলছিল। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ নাসির উদ্দিন সভার শেষ পর্যায়ে সেখানে হাজির হন।

কিছুক্ষণ পরে তিনি ইউএনওর কক্ষে ঢোকেন। সেখানে সভা নিয়ে ভারপ্রাপ্ত ইউএনওর সঙ্গে তাঁর কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তিনি ভারপ্রাপ্ত ইউএনওকে গালাগালি করতে করতে কোমরে রাখা আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন।

আরও খবর: আওয়ামী লীগের এক নেতার মদদে আরেক নেতাকে কুপিয়ে জখম!

ভারপ্রাপ্ত ইউএনও মোহাম্মদ মামুন শিবলি বলেন, ‘উপজেলা চেয়ারম্যান প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি নিয়োগসংক্রান্ত কাজে প্রভাব বিস্তার করতে চেয়েছিলেন। এ কারণে তিনি উত্তেজিত হয়ে আমাকে গালাগালি করেন। কোমরে থাকা আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে হুমকি দেন। আমি মামলা করার উদ্যোগ নিলে স্থানীয় সাংসদ নাহিম রাজ্জাক জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দেকে আমার কার্যালয়ে পাঠিয়েছিলেন। পরে তাঁদের অনুরোধে মামলা করিনি। নিরাপত্তার কারণে জিডি করেছি।’

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ নাসির উদ্দিন বলেন, ‘আমার সঙ্গে ইউএনওর তেমন কোনো ঝামেলা হয়নি, আমি তাঁকে হুমকিও দিইনি। আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা তাঁকে ভুল বুঝিয়ে জিডি করিয়েছেন। এ ছাড়া দপ্তরি নিয়োগের কোনো প্রক্রিয়া শুরু হয়নি, তাহলে কেন প্রভাব বিস্তারের বিষয়টি আসবে? সামান্য ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তা মিটমাট করে দিয়েছেন। এরপরও কেন তিনি জিডি করলেন বুঝতে পারছি না।’

গোসাইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেহেদি মাসুদ বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ইউএনও একটি জিডি করেছেন। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে। তাঁদের নির্দেশনা অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

বিএ-১৮/২৩-০১ (আঞ্চলিক ডেস্ক, তথ্যসূত্র: প্রথম আলো)