‘অন্তরঙ্গ অবস্থায় আটক’ প্রধান শিক্ষককে গাছে বেঁধে গণধোলাই

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে এক নারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ অবস্থায় আটক হওয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক প্রধান শিক্ষককে সুপারি গাছে বেঁধে গণধোলাই দিয়েছেন স্থানীয়রা।

রোববার গভীর রাতে উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের হুড়াভায়া খাঁ গ্রামের এই ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

৫০ বছর বয়সী গণধোলাইয়ের শিকার ওই প্রধান শিক্ষকের নাম গোলাম রব্বানী (বকুল)। তিনি তালুক ফলগাছা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং আরাজি দহবন্দ গ্রামের নিয়ামতুল্লাহ সরকারের ছেলে।

২৮ সেকেন্টের ওই ভিডিওটিতে দেখা যায়, গভীর রাতে মাটিতে বসা বস্ত্রহীন শরীরের প্রধান শিক্ষক গোলাম রব্বানীকে চতুর্দিক থেকে ঘিরে রেখেছেন স্থানীয় নারী-পুরুষ। মাটিতে বসা শিক্ষকের দুই পাশ থেকে দুই হাত শক্ত করে ধরে রেখেছে দুজন ব্যক্তি।

এ সময়ে স্থানীয়দের বিভিন্ন ধরণের কথার মধ্যে তাকে আকুতি-বিলাপ করতেও শোনা যায়। তবে, কোনো এক যুবক এই দৃশ্য ভিডিও ধারণেরর সময় প্রধান শিক্ষক গোলাম রব্বানীকে ‘এ এ্যাও (ভিডিও) করিসনারে’ বলতে শোনা যায় এবং আটকে রাখা ব্যক্তিরাই ভিডিও ধারণে বাধা দেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটি রোববার গভীর রাতে উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের হুড়াভায়া খাঁ গ্রামের গণধোলাইয়ের পর ঘটনাস্থল থেকে ধারণ করা। এরপরেই তাকে সুপারি গাছে বেঁধে রাখা হয়।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের হুড়াভায়া খাঁ গ্রামের এক বিবাহিত নারীর সাথে প্রধান শিক্ষক বকুলের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সেই সম্পর্কের ফলে তিনি সুযোগ বুঝে ওই নারীর বাড়িতে মাঝে-মধ্যেই রাতে আসতেন। সেই ধারাবাহিকতায় রোববার রাতেও সুযোগ বুঝে ওই নারীর সঙ্গে দেখা করতে তার বাড়িতে আসেন প্রধান শিক্ষক।

এক পর্যায়ে ওই নারীর ছেলে তাদেরকে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখতে পেয়ে স্থানীয়দের খবর দেন। পরে স্থানীয়রা এসে গোলাম রব্বানীকে গণধোলাই দিয়ে বাড়ির পাশের একটি সুপারি গাছে রশি দিয়ে বেঁধে রাখেন। পরে অভিযুক্ত শিক্ষককে তার ছোট ভাই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম কবির মুকুল ও রেজাউল করিম ফুলবাবু নামের এক সাবেক ইউপি সদস্য এসে তাকে উদ্ধার করেন।

সুন্দরগঞ্জ থানার ওসি মো. মাহবুব আলম বলেন, ‘বিষয়টি শুনেছি। তবে এখনও কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

এআর-০৪/১৪/০৫ (আঞ্চলিক ডেস্ক)