স্বচালিত গাড়ি আসছে!

প্রকাশিতঃ আগস্ট ১২, ২০১৮ আপডেটঃ ১১:৩২ অপরাহ্ন

স্বচালিত গাড়ির যুগ প্রায় সমাগত। বড় এবং ছোট, নতুন এবং প্রতিষ্ঠিত বিভিন্ন কোম্পানি চালকবিহীন গাড়ি তৈরীর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। কোম্পানিগুলো ইতোমধ্যেই নানান নকশার স্বচালিত গাড়ির পরীক্ষাও আলিয়েছে। শীঘ্রই বাজার দখলের প্রতিযোগিতায় নাসবে এইসব গাড়ি।

অনেকেই এসব গাড়ি নিয়ে তুমুল আগ্রহ দেখালেও অনেকেই এর ফলে চাকরি হারানোর শঙ্কায় পড়েছে। আবার এর উল্টোও যে হচ্ছেনা তা নয়। যেমন ৪১ বছর বয়সী উইল মুয়াট। তিনি যখন শুনলেন স্বচালিত গাড়ির ফলে চাকরির একটি নতুন বাজার তৈরী হবে তিনি উৎসাহিত হয়ে পড়েন।

যদিও তার কোন প্রকৌশল অভিজ্ঞতা নেই, তিনি একজন আইনজীবি। তিনি এর আগে সফটওয়ার কোম্পানি পিকসআর্টস এর আইনি দলে, সংগীতের অ্যাপ সাজেম সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেছেন। তিনি স্বচালিত গাড়ির একটি বিশেষ দলে কাজের সুযোগ পেয়েছেন।

এই দলে আরো রয়েছেন ক্রিস উরমসন এবং স্টারনিং এন্ডারসন। উমারসন ছিলেন গুগলের স্বচালিত গাড়ি প্রকল্পের প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা এবং এন্ডারসন টেসলার অটো পাইলট প্রকল্পের প্রধান ছিলেন। তারা ২ জন মিলে অরোরা নামে একটি পৃথক কোম্পানি খুলেছেন।

বর্তমানে মুয়াট অরোরার ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং প্রধান পরামর্শক হিসেবে কাজ করছেন। নতুন প্রযুক্তি প্রায়ই মানুষের মনে ভিতির সঞ্চার করে কিন্তু স্বচালিত গাড়ি এই ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। মার্কিনিরা ইতোমধ্যেই স্বচালিত গাড়িকে বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন।

এবছরের দুটি প্রাণঘাতি দূর্ঘটনাও তাদের বিশ্বাসে চির ধরায়নি। এর ফলে এই ধরণের গাড়ির চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে বিভিন্ন রকমের কাজের সুযোগও বেড়েই চলেছে। তবে বেশীরভাগই প্রযুক্তি খাতের কাজ। তাই এ ধরণের কাজে দক্ষরাই প্রথম সুযোগ পাবেন তা বলাই বাহুল্য।

এসএইচ-২৬/১২/০৮ (অনলাইন ডেস্ক , তথ্যসূত্র : সিএনবিসি)