সেই মানহীন ৫২ পণ্য এখনও বাজারে

প্রকাশিতঃ মে ১৪, ২০১৯ আপডেটঃ ৪:০২ অপরাহ্ন

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশনের (বিএসটিআই) ঘোষিত ৫২টি মানহীন ভোগ্যপণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহারে হাইকোর্টের নির্দেশনা মানা হচ্ছে না। ওইসব নিম্নমানের ভেজাল পণ্যসামগ্রী এখনও খোলাবাজারে বিক্রি হচ্ছে। এ বিষয়ে কোনো সরকারি সংস্থা বা আইনশৃঙ্খলাবাহিনীকে তৎপর হতে দেখা যায়নি।

বিএসটিআইয়ের গুণগতমান যাচাইয়ে উত্তীর্ণ না হওয়া বিভিন্ন ধরনের ভোজ্য তেল, খাবারের মসলা, পানি, সেমাই, ঘি, ময়দা, দই, চানাচুর, মধু, লবণসহ বিভিন্ন ধরনের ৫২টি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী বিক্রি বন্ধে গত রোববার আদেশ দেয় হাইকোর্ট। পাশাপাশি ওইসব পণ্য বাজার থেকে সরিয়ে নেওয়া এবং সরবরাহকারী ও বিক্রেতাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে বলা হয়।

বিএসটিআইয়ের পরীক্ষার মাধ্যমে পুনরায় উত্তীর্ণ না হওয়া পর্যন্ত এসব পণ্য উৎপাদন, সরবরাহ এবং বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয় ওই রায়ে। আর এই আদেশ বাস্তবায়ন করতে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর এবং বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষকে আদেশ দেন আদালত।

ঢাকার খোলবাজারগুলো ঘুরে সোমবার দেখা গেছে, থেমে নেই এসব পণ্যের বিক্রি। ঢাকার সবচেয়ে বড় পাইকারি পণ্যের বাজার কারওয়ান বাজারসহ শান্তিনগর, মগবাজার, মহাখালী, উত্তরাসহ বেশ কয়েকটি এলাকার দোকানপাট ও বাজারে এসব পণ্য বিক্রি হতে দেখো গেছে। এসব পণ্যের মজুদ সরিয়ে নেওয়া অথবা বিক্রি বন্ধে এখনো কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি পণ্যগুলোর মালিকানা প্রতিষ্ঠান বা উৎপাদক থেকে শুরু করে সরবরাহকারী অথবা সরকারি সংস্থাগুলোকে।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তারা বলছেন, আদালতের আদেশের অনুলিপি এখনো আমাদের হাতে পৌছেনি। কপি হাতে পেলে আদালতের আদেশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিএসটিআইয়ের ল্যাবে মান যাচাই পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়া ৫২টি পণ্য হলো- সিটি ওয়েলের তীর সরিষার তেল, গ্রিন ব্লিচিংয়ের জিবি সরিষার তেল, শবনমের পুষ্টি সরিষার তেল, বাংলাদেশ এডিবল ওয়েলের রূপচাঁদা সরিষার তেল, কাশেম ফুডের সান চিপস, আররা ফুডের আরা ড্রিংকিং ওয়াটার, আল সাফির ড্রিংকিং ওয়াটার, শাহারী অ্যান্ড ব্রাদার্সের মিজান ড্রিংকিং ওয়াটার, মর্ন ডিউয়ের ড্রিংকিং ওয়াটার, ডানকান ন্যাচারাল মিনারেল ওয়াটার, আর আর ডিউ ড্রিংকিং ওয়াটার, দিঘী ড্রিংকিং ওয়াটার, প্রাণের লাচ্ছা সেমাই, নিউজিল্যান্ড ডেইরির ডুডলি নুডলস, শান্ত ফুডের টেস্টি- তানি ও তাসকিয়া সফট ড্রিংক পাউডার, জাহাঙ্গীর ফুডের প্রিয়া সফট ড্রিংক পাউডার, ড্যানিশের হলুদের গুঁড়া, প্রাণের হলুদের গুঁড়া, তানভির ফুডের ফ্রেশের হলুদের গুঁড়া, এসিআইয়ের ধনিয়ার গুঁড়া, প্রাণের কারি পাউডার, ড্যানিশের কারি পাউডার, বনলতার ঘি, পিওর হাটহাজারী মরিচের গুঁড়া, মিষ্টিমেলা লাচ্ছা সেমাই, মধুবনের লাচ্ছা সেমাই, মিঠাই সুইটস এর লাচ্ছা সেমাই, ওয়েল ফুডের লাচ্ছা সেমাই, এসিআইয়ের আয়োডিন যুক্ত লবণ, মোল্লা সল্টের আয়োডিন যুক্ত লবণ, কে আর ফুডের কিং ময়দা, রুপসার দই, তাঊয়েবা ফুডের মক্কার চানাচুর, ইমতিয়াজ ফুডের মেহেদীর বিস্কুট, বাঘাবাড়ীর স্পেশাল ঘি, নিশিতা ফুডসের সুজি, মধুবনের লাচ্ছা সেমাই, মঞ্জিলের হলুদ গুঁড়া, মধুমতির আয়োডিনযুক্ত লবণ, সান ফুডের হলুদের গুঁড়া, গ্রিন লেনের মধু, কিরণের লাচ্ছা সেমাই, ডলফিনের মরিচের গুঁড়া, ডলফিনের হলুদের গুঁড়া, সূর্যের মরিচের গুঁড়া, জেদ্দার লাচ্ছা সেমাই, অমৃতের লাচ্ছা সেমাই, দাদা সুপারের আয়োডিনযুক্ত লবণ, তিন তীরের আয়োডিনযুক্ত লবণ, মদিনার আয়োডিনযুক্ত লবণ, তাজ আয়েডিনযুক্ত লবণ এবং নূরের আয়োডিনযুক্ত লবণ।

এসএইচ-০৮/১৪/১৯ (অনলাইন ডেস্ক)