তিন তারকা ফুটবলার খারাপ সময় কাটাতে কি করেন?

প্রকাশিতঃ জুলাই ১১, ২০১৮ আপডেটঃ ৭:০১ অপরাহ্ন

পেশাদার জীবনে খারাপ সময় আসতে পারে এটা স্বাভাবিক। কিন্তু তরকাদের ক্ষেত্রে ব্যাপারটা একটু ভিন্ন। কঠিন সময়ে তাদের শুনতে হয় নিন্দুকদের দুয়ো, মিডিয়ার টিপ্পনি। আর সেটা যদি হয় গ্রহের সেরা ফুটবলার মেসি, রানোলদো ও নেইমারের ক্ষেত্রে তাহলে তো আর কথাই নেই। সমালোচকরা যেন চেপে বসে তাদের উপর। বিশ্বখ্যাত এই ফুটবলাররা তাদের জীবনের বাজে সময়গুলো কীভাবে কাটিয়ে ওঠেন, সেসব থাকছে এই প্রতিবেদনে।

লিওনেল মেসি : বর্তমান সময়ে বিশ্বের সেরা ফুটবলার। ক্লাব পর্যায়ে এমন কোন শিরোপা নেই মেসি জেতেননি তবে জাতীয় দলের হয়ে তিনি জিততে পারেননি এখন পর্যন্ত কোন শিরোপা। যার কারণে তাকে অনেক সমালোচনা শুনতে হয়েছে। ‘মেসি শুধু বার্সার, আর্জেন্টিনার নয়’ এমন আরও কত কি! টানা তিনটি মেজর টুর্নামেন্টে আর্জেন্টিনাকে ফাইনালে তুলেও শিরোপা ছঁতে পারেনি সুপারস্টার মেসি। ২০১৬ সালে তো কোপার ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়ে রাগে, ক্ষোভে, অভিমানে জাতীয় দল থেকে অবসরের ঘোষণা দেন মেসি।

আরও খবর : ডোপ টেস্টে ধরা খেলেন শেহজাদ

কিন্তু তারপর মেসি ফিরেছেন। আর্জেন্টিনাকে তুলেছিলেন বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে। মেসি নিজের বাজে সময়কে বারবার অবলীলায় পেছনে ফেলতে পারেন কীভাবে, সেটা তার একটা মন্তব্যেই বোঝা যায়। মেসি একবার বলেছিলেন, ‘আপনি সব বাজে সময়কেই কাটিয়ে উঠতে পারেন। সেটা তখনই পারবেন, যখন আপনি কোনো কিছুকে অসম্ভব ভালোবাসবেন।’ মেসি ফুটবলকে ভালোবাসেন। এই ভালোবাসা দিয়েই তিনি খারাপ সময়কে জয় করেন।

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো : বর্তমান বিশ্বে মেসির একমাত্র প্রতিযোগী তিনি। সাবেক রিয়াল ও বার্সা তারকা মিলে গত এক দশক যাবত ফুটবল দুনিয়াটা শাষণ করছেন। পাঁচবার ব্যালন ডি’অর জয়ী রোনালদো ক্লাব রিয়ালকে টানা তিন চ্যাম্পিয়ন লিগ শিরোপা জিতিয়েছেন। সব মিলিয়ে রিয়ালে হয়ে তিনি মোট ১৬টি ট্রফি জিতেছেন। ৪৩৮ ম্যাচে করেছেন ৪৫০ গোল। ফুটবলারদের জীবনে ভক্তদের ঘৃণা আর ভালোবাসা যেন মুদ্রার এপিঠ আর ওপিঠ। রোনালদো মুদ্রার ওদিকটা দেখেছেন অনেকবারই। দর্শকেরা দুয়োধ্বনি দিয়েছেন। কিন্তু তিনি হাল ছাড়েননি। গোল করে, দলকে সাফল্য এনে দিয়ে দর্শকদের তালি আদায় করেছেন।

এ ব্যাপারে তিনি একবার বলেছিলেন, ‘দর্শকদের ভালোবাসা আমাকে শক্তিশালী করে। কিন্তু দর্শকেরা যখন আমাকে ঘৃণা করে, দুয়ো দেয়, তখন আমার মধ্যে অদম্য শক্তি দেখা দেয়। সে সময় আমাকে থামানো অসম্ভবই।’

নেইমার : মেসি-রোনালদো পরিবর্তি যুগের সেরাদের একজন। ইতোমধ্যে বিশ্বের নামিদামি ক্লাবে খেলে ফেলেছেন।বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলারের তকমাটা তারা গায়ে সাটানো। তুলনামূলক ছোট ক্যারিয়ারে দেখেছেন উত্থান-পতন। নিজেরও কিছু ‘শিশুসুলভ’ আচরণের জন্য বিশ্বব্যাপী সমালোচনার পাত্র হন নেইমার। দুঃসময়ে নেইমার কি করেন। এ ব্যাপারে পিএসজি তারকা বলেন,‘যখন আমি হারি বা ব্যর্থ হই, তখন আমি আমার সবকিছু বদলে ফেলি না। এ সময় আমি নিজের ভুলগুলোকে শোধরাতে পরিশ্রমের মাত্রা বাড়িয়ে দিই।’

এসএইচ-২৬/১১/০৭ (স্পোর্টস ডেস্ক)