খালেদা জিয়াকে পরিত্যক্ত কারাগারে রাখা হয়েছে: ফখরুল

প্রকাশিতঃ ফেব্রুয়ারী ১৩, ২০১৮ আপডেটঃ ৭:২২ অপরাহ্ন

খালেদা জিয়াকে একটি জীর্ণ ও পরিত্যক্ত কারাগারে রাখা হয়েছে। এটা মানবাধিকার লঙ্ঘন। এর বিচার হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন কালে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমাদের এই সংগ্রাম, এই লড়াই দেশনেত্রীকে মুক্ত করে নিয়ে আসার লড়াই। এই লড়াই আমাদের নেতা-কর্মীদের মুক্ত করার লড়াই। এই লড়াই বাংলাদেশের মানুষকে মুক্ত করার লড়াই, গণতন্ত্রকে মুক্ত করার লড়াই। বর্তমান সরকার সম্পূর্ণভাবে গণবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে।

সরকার দেউলিয়া হয়েছে বলেই আজকে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা এবং প্রায় ১৫ লাখ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে। খালেদা জিয়াকে কারাগারে নিয়ে সরকার মনে করছে, বাংলাদেশের মানুষকে স্তব্ধ করা যাবে, দমিয়ে রাখা যাবে। সেটা যাবে না। দেশের মানুষ অবশ্যই কারাগার থেকে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে নিয়ে আসবে। নৈতিকভাবে এই সরকারের ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার নেই।

আরও খবর: ষষ্ঠ দিনেও মেলেনি রায়ের কপি, পেছাল খালেদার আপিল

আজকের অবস্থান কর্মসূচিতে বিএনপির নেতা-কর্মীদের শান্তিপূর্ণভাবে, গণতান্ত্রিক উপায়ে খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করার আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান বিএনপির মহাসচিব।

অবস্থান কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, মওদুদ আহমদ, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ জেড এম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, জয়নুল আবদিন ফারুক, হাবিবুর রহমান হাবিব, আবুল খায়ের ভূঁইয়া, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন, বরকতউল্লাহ বুলু।

প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, ফজলুল হক মিলন, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সেলিম ভূঁইয়া, আবদুস সালাম আজাদ, শহীদুল ইসলাম বাবুল, কাদের গণি চৌধুরী, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দীন টুকু, মামুন হাসান প্রমুখ।

এমও-১৪/১৩-০২ (ন্যাশনাল ডেস্ক, তথ্যসূত্র: প্রথম আলো)