চট্টগ্রামে তিনটি বাল্যবিবাহ বন্ধ

প্রকাশিতঃ এপ্রিল ২০, ২০১৮ আপডেটঃ ৮:১৭ অপরাহ্ন

চট্টগ্রামে আরেক কিশোরীর বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। শুক্রবার সাতকানীয়া উপজেলা সদরের একটি কমিউনিটি সেন্টারে বিয়েটি বন্ধ করে দেয় পুলিশ। এনিয়ে সাতকানিয়ায় গত চারদিনে তিনটি বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। তিন কিশোরী সাবালিকা না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে না দেয়ার বিষয়ে পরিবারের কাছ থেকে মুচলেকাও নেওয়া হয়েছে।

পুলিশ জানায়, সাতকানিয়ার নলুয়া ইউনিয়নের মৈশামুডা মরফলা বাজার এলাকার এক কিশোরী এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। তার সঙ্গে ছদহা ইউনিয়নের ছোট ঢেমশার বাসিন্দা আহমদ কবিরের প্রবাসী ছেলে আবুল কাশেম মো. পারভেজের বিয়ের আয়োজন করা হয়েছিল।

আরও খবর: যশোরে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

এ কারণে সাতকানিয়া রাস্তার মাথায় ‘ড্রিম হাউস কমিউনিটি সেন্টারে’ শুক্রবার ভোজের আয়োজন করা হয়। বাল্য বিয়ের খবর পেয়ে দুই পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে কমিউনিটি সেন্টার বন্ধ করে দেয় পুলিশ।

এর আগে বুধবার মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হেল্প লাইনে অভিযোগ পাওয়ার পর কালিয়াইশ ইউনিয়নে দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর বিয়ের আয়োজন পুলিশ গিয়ে বন্ধ করে দেয়। ওই স্কুল ছাত্রীর সঙ্গে বাঁশখালী উপজেলার সাধনপুরের বাসিন্দা সুকুমার জলদাসের সঙ্গে আগামী ২৯ এপ্রিল বিয়ের তারিখ ঠিক করা হয়েছিল।

এছাড়াও মঙ্গলবার কেওচিয়া ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা প্রবাসী শামসুল ইসলামের ১০ম শ্রেণি পড়ুয়া নাবালিকা মেয়ের সঙ্গে একই গ্রামের আবুল কাশেমের প্রবাসী ছেলে মো. রাশেদুল ইসলামের বিবাহের দিনক্ষণ ঠিক হয়। পরে এই বিয়েও বন্ধ করে দেয় পুলিশ।

সাতকানিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল হোসেন বলেন, নাবালিকার অভিভাবক ও পাত্রপক্ষের সঙ্গে কথা বলে বাল্য বিবাহের কুফল সম্পর্কে জানিয়েছি আমরা। এরপর তারা নিজেদের ভুল বুঝতে পারেন।

বিএ-২১/২০-০৪ (আঞ্চলিক ডেস্ক)